Menu Close

আশা কাকে বলে জানেন? অত্যান্ত জরুরী কিছু বাস্তবমুখী কথা!

আশা কাকে বলে

আশা এমন একটা জিনিশ, সেটা আপনার আমার প্রায় সবার মধ্যেই বিপুল পরিমানে বিদ্যমান। যদি বাস্তবজীবনে আশার উদাহরন স্বরূপ সংগা দেই, তাহলে বিষয়টা এমন দাঁড়ায় যে, যখন পুরো দুনিয়া আপনাকে বলবে হার মেনে নাও, আর তখন আপনার মন বলবে চেষ্টা করতে থাকো, তুমি অবশ্যই তোমার টার্গেট এ উঠে দাড়াতে পারবে। এই যে আওয়াজ টা মনের ভিতর থেকে আসে, একেই আশা বলে।

একটু খেয়াল করবেন!

কোন কিছু আপনি ভাগ্যের জোরে পেয়ে যেতে পারেন ঠিকই, তবে তার জন্য আপনাকে চেষ্টা করতেই হবে। মনে রাখবেন, ভাল সময় দেখার জন্য খারাপ সময় আপনাকে দেখতেই হবে। তাই এই বিষয়টি অবশ্যই মাথায় রাখা জরুরি যে, প্রতিটি চেষ্টার সাথে সফলতা পাওয়া যায় না কিন্তু প্রতিটি সফলতার পিছনে কোন না কোন চেষ্টা অবশ্যই থাকে। আপনার দৃষ্টি আপনাকে সেখানেই রাখা উচিত যা আপনি পেতে চান, সেখানে নয় যা আপনি হারিয়েছেন।

জীবনে কত টুকু আশা রাখা উচিত?

একটা প্রশ্ন মাথায় জাগতেই পারে যে, জীবনে আসলেও কতটুকু আশা রাখা উচিত? কতটা আশা নিয়ে বাঁচা যায়! আমার মতামত হচ্ছে, আপনি যদি প্রকৃতপক্ষে জীবনে যদি শান্তি পেতে চান, তাহলে সবার আগে আপনাকে যেটা করতে হবে যেটা হচ্ছে, কতটা আশা কোথায় করবেন সেটা শিখতে হবে আপনাকে। এই জিনিসটা ওতটাও সহজ না। পাবনো যেনেও অনেক সময় আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাই আশা নিয়ে, এখানে এসেই আসল ধরাটা খাই। তাহলে মূল কথা দাঁড়াচ্ছে আশা থাকা জরুরি তবে কোথায়, কোন ক্ষেত্রে কতটুকু রাখা উচিত সেটা জানা।

এরপর আপনাকে যা করতে হবে,

লোকের কথায় কিছু মনে করা ছেড়ে দিন। লোকে কি ভাব্বে সেটা যদি আপনিই ভাবেন তাহলে লোকের ভাবার কিছু থাকলো না। কিছুটা না হয় লোকের উপরই ছেড়ে দিন।

আমরা অনেকেই ব্যক্তিগত জীবনে কাছের কেউ ছেড়ে গেলে অনেক ব্যাথিত হই, নিরাশায় আশার ঘাট বানাই। আসবে না জেনেও চাইতে থাকি আসুক, থাকবে না জেনেও চাইতে থাকি থাকুন সবটা সময়। এখানে উপদেশ দেওয়ার কিছু নেই। এই বিষয়টা ফেইস করেনি এমন টিন এজ বাঙ্গালি অনেক কমই আছে। তবে আপনার যা বোঝা উচিত সেটা হচ্ছে কেউ যেতে চাইলে তাকে আটকানো উচিত না। কেউ যদি আপনার থেকে দূরে যেতে চায় তাকে দূরে যেতে দিন। তা না হলে আপনি যত তার কাছে যাওয়ার চেষ্টা করবে সে তত বেশি আপনাকে অপমান করবে, কষ্ট দেবে।

আমার মন্তব্য!

সময় তোমাকে আমি ধন্যবাদ জানাই, আমি যাই কিছু শিখেছি তোমার কাছে শিখেছি। আমি তোমার কাছেই শিখেছি যে, যে অন্যের চেহারা তে হাসি নিয়ে আসে উপর আল্লাহ্‌ তার কাছ থেকে কখনোই হাসি কেড়ে নেন না। নিজের স্বপ্নকে পূর্ণ করার জন্য বুদ্ধিমান নয়, পাগল হতে হয়; জেদি হতে হয়। প্রয়োজনে আশার পাহাড় বুকে নিয়ে দৌড়াতে হয় আবার প্রয়জনে আশা ভুলে “ইটস ওকে” বলে ছেড়ে দিতে হয়। সিচুয়েশন বুঝে যেটা ঠিক লাগে, সিদ্ধান্ত নিয়ে নিন।

শেষের শুরু

প্রত্যেকের কাছে তাদের চাওয়া-পাওয়া, ইচ্ছা-আকাঙ্খা, শখ-আশা বিষয়গুলো আলাদা। একটা বিষয় নিয়ে জীবনে থেকে যাব, বাট হতে পারে আপনি বা অন্য কেউ এর চাইতেও অনেক সিরিয়াস বিষয় খুব সহজ সাবলীলভাবে এডিয়ে চলে যাবে। এখানেই আসল তফাতটা। কোথাও, কিছুতে হেরে গেলেই যে সব শেষ হয়ে গেলো, এমন না। চাইলে যে কেউ, যেকোনো সময় ঘুরে দাঁড়াতে পারে। যে ঘুরে দাঁড়ায়, সে যেতে। যে থেমে যায়, সে হেরে যায়।

নোটঃ কখনো কখনো নিজের জেতার খুশি আপন জনের কাছে হেরে গেলে পাওয়া যায়।

Related Posts