Menu Close

আইফোনের এনেক্সাইটি এন্ড ডিপ্রেশন ডিটেকশন ফিচার

এনেক্সাইটি এন্ড ডিপ্রেশন ডিটেকশন

অ্যাপল আইফোন ভবিষ্যতে ব্যবহারকারীদের ফেস স্ক্যান করে হতাশা এবং উদ্বেগ সনাক্ত করতে পারবে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

বর্তমান সময়ে মানসিক স্বাস্থ্য অন্যতম উত্থাপিত সমস্যা। এবং এটি সত্যিই অনেক ভয়ঙ্করও বটে! প্রায় সকল ধরনের লোক এই সমস্যা পোহাতে হচ্ছে, যাদের আক্ষরিক অর্থে এ সম্পর্কে কোন ধারণা নেই। এটি অনেক ক্ষতি করছে এবং লোকেরা সেদিকে মনোযোগ দিচ্ছে না; দিতে পারছে না।

অ্যাপল এই দিকে একটু মনোযোগ দিয়েছে বলে মনে হচ্ছে!

বর্তমানে, অ্যাপল সত্যিই একটি আশ্চর্যজনক টুল নিয়ে কাজ করছে যা আর গুজব নয়; সম্ভবত খুব দ্রুত’ই আমরা এই অত্যান্ত গুরত্বপূর্ন ফিচার ব্যবহার করতে পারবো।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের সাম্প্রতিক একটি নিবন্ধ অনুসারে অ্যাপল ব্যবহারকারীদের বিভিন্ন মানসিক স্বাস্থ্য পরিস্থিতি সনাক্ত করার উপায় খুঁজে বের করছে। এমন কিছু উপায় আছে যা আসলে আপনার বর্তমান মানসিক অবস্থা নির্ধারণ করতে পারে। গবেষকদের মতে, এর মধ্যে হতে পারে মুখের অভিব্যক্তি, হৃদস্পন্দন, ঘুমের তথ্য, মোবাইল ব্যবহারের ইতিহাস ইত্যাদি।

আমরা খুব নিকট ভবিষ্যতে এই ফিচারটি পেতে পারি। এখানে এই আর্টিকেলে আমি লিখব কিভাবে আইফোন সত্যিই তাদের ব্যবহারকারীদের বিভিন্ন মানসিক স্বাস্থ্য পরিস্থিতি সনাক্ত করতে পারে। এটা কি সত্যিই সম্ভব নাকি না! এবং কিভাবে এই টুলটি আপনাকে আপনার নিজের মানসিক অবস্থার উন্নতি করতে এবং নিজের সম্পর্কে সচেতন হতে সাহায্য করতে পারে।

ফেস ডিটেকশন এখন কীভাবে কাজ করছে

ফেস সনাক্তকরণ প্রযুক্তি হল এক ধরনের ম্যাথমেটিক্যাল এবং লজিক্যাল অ্যালগরিদম যা বিভিন্ন পরিমাপের উপর নির্ভর করে। এই প্রযুক্তি আপনার চোখ থেকে চোখের দূরত্ব, নাক থেকে চোখ, নাসারন্ধ্র থেকে ল্যাবিয়াম, আপনার মুখের আকৃতি গোলাকার বা ডিম্বাকৃতি, আপনার নরমার লুক এবং প্রেশারের পর লুক উভয়ের মধ্যে তফাত পরিমাপ ইত্যাদি দ্বারা আপনার ফেস থেকে তথ্য সংগ্রহ করে। মনে রাখতে হবে, দুটি ভিন্ন ব্যক্তির ক্ষেত্রে পরিমাপ একই নয়।

এই তথ্যগুলি পুরুষদের থেকে পুরুষদের মধ্যে আলাদা এবং অ্যাপলের মতো স্মার্ট ডিভাইসগুলি ফেস সনাক্ত করার জন্য আগে করা পরিমাপ সংরক্ষণ করতে পারে এবং ডেটা ব্যবহার করে ফেস স্ক্যান করা এবং বিষণ্নতা এবং উদ্বেগ সনাক্ত করার মতো নতুন কিছু আনতে পারে।

ফেস সনাক্তকরণের ভবিষ্যত (ফেস স্ক্যানিং)

এখন প্রশ্ন হল, অ্যাপল কি এটি সঠিকভাবে করতে পারে? চিকিৎসাবিজ্ঞান অনুসারে, কেবল তার ফেস স্ক্যান করে কারো মানসিক স্বাস্থ্যের বিভিন্ন অবস্থা সনাক্ত করা অসম্ভব নয়। আমাকে এটি পরিষ্কার করতে দিন।

মানুষের মুখের অভিব্যক্তি একদল পেশী দ্বারা নির্ধারিত হয় যাকে সম্মিলিতভাবে মুখের অভিব্যক্তি বলা হয়। Orbicularis Oirs এর মত পেশী, ঠোঁটের চারপাশে, উভয় চোখের চারপাশে orbicularis oculi। ভ্রু উপরে Corrugator Supercilli, আপনার ছানা পাশে buccinator। এই পেশীগুলো বিভিন্ন মানসিক অবস্থায় সংকুচিত এবং শিথিল হয় এবং এই পেশীগুলির সংকোচন সবসময় স্বেচ্ছায় হয় না।

হতাশা, উদ্বেগ, আতঙ্ক এবং অন্যান্য মানসিক স্বাস্থ্যের অবস্থা অনিচ্ছাকৃতভাবে এই পেশীগুলির সংকোচনের কারণ হয় এবং এই সংকোচন আমাদের মুখের আকৃতি পরিবর্তন করে। যা মুখের চাপের অভিব্যক্তি তৈরি করে।

আমরা সকলেই জানি এই সংকোচন এবং আকৃতি পরিবর্তনের পরিমাপগুলি মাইক্রো থেকে ন্যানো স্তরের পরিমাপ। যদি অ্যাপলের আসন্ন উদ্ভাবনী ফেস সনাক্তকরণ ব্যবস্থা মাইক্রো-পরিমাপ পরিবর্তনগুলি সনাক্ত করতে পারে তবে এটি ভবিষ্যতে ব্যবহারকারীদের মুখ স্ক্যান করে আমাদের মানসিক অবস্থা নিশ্চিতভাবে সনাক্ত করতে পারে।

নিজস্ব মতামত

অ্যাপল তাদের স্মার্টফোনে এই দুর্দান্ত বৈশিষ্ট্যটি আনতে সাম্প্রতিক অনেক ধরণের গবেষণার সাথে কাজ করছে বলে জানা গেছে। কিন্তু গবেষণা প্রকল্পটি এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। এটি কিছু সময় নিতে পারে কারণ অ্যাপল এমন একটি বৈশিষ্ট্য আনবে না যা সঠিকভাবে কাজ করবে না। এই টেক জায়ান্ট এই নতুন প্রযুক্তিটি প্রকাশ করবে যখন তারা এটি সম্পর্কে শতভাগ নিশ্চিত হবে।

অ্যাপল যদি প্রযুক্তি প্রকাশ করতে সক্ষম হয়, তাহলে এটি বিশ্বজুড়ে মানুষকে তাদের মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন হতে এবং ভবিষ্যতের জটিলতা রোধে অবিলম্বে ব্যবস্থা নিতে সাহায্য করবে। যদি এই প্রযুক্তি সঠিকভাবে কাজ করে, তাহলে এটি সারা বিশ্বের মানুষের জীবন রক্ষাকারী হতে পারে এই অত্যান্ত উদ্ভাবনী প্রযুক্তিটি।

এখন সময় শুধুমাত্র অপেক্ষার! দেখা যাক অ্যাপল কত দ্রুত আমাদের পরিচয় করিয়ে দেয় এই আকাঙ্খিত প্রযুক্তিটির সাথে! আমি অপেক্ষায় রইব; আপনি অপেক্ষায় আছেন তো?

Related Posts